×
ভাইরাল

সন্মান দিয়ে রানুদিকে মালা পড়ালো ইউটিউবার, শ্রাদ্ধের মালা ভেবে তুমুল গালিগালাজ রানু মণ্ডলের, রইল ভিডিও

বিজ্ঞাপন

সেকি কাণ্ড! একি বললো রাণু দি? নিজের শ্রাদ্ধ নিজেই করতে বললো? আবার বলে কিনা আমার শ্রাদ্ধ করে খাঁ রাক্ষসগুলো! যদিও রানুদির কন্ঠে গান ছাড়াও অনেক বাজে কথাও বেরোয়, যা শুনে তাজ্জব হওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। এটাই এখন নেটিজেনদের অভ্যাস হয়ে গিয়েছে রানু দির থেকে শোনার। তবে সাম্প্রতিক এই কথা কেন বলতে গেল রানু মন্ডল? ২০১৯ সালে সঙ্গীতশিল্পী লতা মঙ্গেশকরের (Lata Mangeshkar) একটি জনপ্রিয় গান ‘এক প্যায়ার কা নাগমা’ (Ek Pyaar Ka Nagma) গানটি গেয়ে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে রাতারাতি ভাইরাল হয়েছিলেন রানাঘাট স্টেশনের ভিক্ষুক লতাকন্ঠী রানু মন্ডল (Ranu Mondol)। এমনকি তিনি নিজের অসাধারণ কন্ঠের জেরে ইন্টারনেট সেনসেশন হয়ে ওঠার পাশাপাশি মুম্বইতেও নিজের রাজত্ব তৈরি করেছিলেন।

বিজ্ঞাপন

হিমেশ রেশামিয়ার সঙ্গে তিনি কয়েকটা গান গাওয়া থেকে শুরু করে হিন্দি টেলিভিশনের নানা রিয়্যালিটি শোতেও অতিথি হিসেবেও উপস্থিত হয়েছিলেন। সুতরাং বোঝাই যাচ্ছে, সেই সময়ে রানু মন্ডল সপ্তম সাগরে ভাসছিলেন। কিন্তু রানু মন্ডলের খ্যাতি বেশিদিন স্থায়ী হয়নি, অল্প সময়ের মধ্যেই এত নাম করে যাওয়াতে অসম্ভব অহংকারী হয়ে উঠেছিলেন রানুদি। সেই কারণেই, পাবলিক তাঁকে রাতারাতি টেনে নিচে নামিয়ে দেয়। অগত্যা মুম্বই থেকে ফিরেই পুরোনো জীবনে ফিরে যান রানুদি!

বর্তমানে রানুদির জীবনযাত্রা আর্থিক দুর্দশার মধ্য দিয়ে কাটছে। মাঝেমধ্যেই বিভিন্ন ইউটিউবাররা রানুদির বাড়িতে এসে তাঁকে বিভিন্ন খাওয়ার দেওয়ার পাশাপাশি রানুদির ইন্টারভিউ নিয়ে আসেন, এবং তাঁর জীবনযাত্রা তুলে ধরেন সমাজের কাছে। তবে রানুদি ইউটিউবারদের সঙ্গে মিলে নানা রকম কান্ড ঘটান। যে কারণে তাঁর নামের পাশে সবসময়েই ভাইরাল তকমাটা জুড়ে থাকে। কখনো হিন্দি ভাষা আবার কখনো ইংরেজী ভাষাও শোনা যায় রানু দির থেকে। তবে এবার সবকিছু অতিক্রম করে গেল।

সম্প্রতি, আরেক ইউটিউবারের সঙ্গে মজাদার কান্ড করে বসলেন রানুদি। ওই ইউটিউবার মাঝে মাঝেই রানুদির বাড়িতে যান, গিয়ে ওনার সঙ্গে দেখা করে আসেন। তবে এবার তিনি সঙ্গে করে রজনীগন্ধা ফুলের মালা এবং আনারস নিয়ে গেলেন রানুদির জন্যে। আর তা দেখেই রানুদি এক্কেবারে ক্ষেপে গেল। হ্যাঁ, তাঁকে রজনীগন্ধা ফুলের মালা পড়াতেই সে বলে বসল, আমি কি মরে গেছি, আমার শ্রাদ্ধ করতে এসেছিস আনারস নিয়ে। হ্যাঁ, খা আমার শ্রাদ্ধ করে খা। এরপরই ওই ইউটিউবারকে রানুদি বলেন, চিটিংবাজ, কোনও ভাল ভাল খাবার তো নিয়ে আসতে পারিস। শুধু একখান আনারস নিয়ে মজা করতে এসেছিস। বেরো আমার বাড়ি থেকে। এই বলেই ঝাটা দিয়ে তাড়া করল সে ওই ইউটিউবারকে। তবে রানুদির থেকে এই ধরণের ব্যবহার পাওয়া অভ্যেসে পরিণত হয়ে গিয়েছে সব ইউটিউবারদের। তাই মাঝে মধ্যে নিজের ইউটিউবের সাবস্ক্রাইবারের সংখ্যা বাড়াতেই রানুদির বাড়িতে গিয়ে এমন কান্ড করে থাকেন ইউটিউবাররা। যা দেখে হতবাক হয়ে গেলেন নেটিজেনরা। সম্প্রতি এই ভিডিওটি ‘Milto Icon’ নামক একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে পোস্ট করা হয়েছে।

Related Articles