×
নিউজ

ওয়ার্ক ফ্রম হোমের দুর্দান্ত সুযোগ নিয়ে এলো টাটা গ্রুপ! সুযোগ উপভোগ করতে পারেন আপনিও, রইল বিস্তারিত

বিজ্ঞাপন

বিশ্বজুড়ে টাটা কোম্পানির আধিপত্য সুবিশাল। আর টাটা কোম্পানির অধিকর্তা রতন টাটারও খ্যাতি গোটা ভুবন জুড়ে। ভারতবর্ষের একটি বিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠান হিসেবে টাটা গ্রুপের নাম শীর্ষেই আছে বলা চলে। যাদের রয়েছে বিভিন্ন ধরনের একাধিক ব্যবসা। এবার এক নতুনভাবে আয়ের সন্ধান দিল টাটা গ্রুপ অফ কোম্পানি (Tata Group Of Company)। টাটা গ্রুপের বর্তমানে ফোকাস শেয়ার মার্কেটের উপর। শোনা যাচ্ছে, কোম্পানি নিজেদের আইপিও আনার পরিকল্পনা করছেন, যার মাধ্যমে আমরা প্রত্যেকেই ঘরে বসে বাড়তি উপার্জন করতে সক্ষম হতে পারবো।

বিজ্ঞাপন

সূত্রের খবর, সম্প্রতি বাজারে যে হারে পেট্রল-ডিজেলের দাম বাড়ছে, মধ্যবিত্তদের মাথায় রীতিমত হাত পড়েছে। সেই কারণে পেট্রল-ডিজেলের অতীব খরচ থেকে বাঁচতে বৈদ্যুতিক গাড়ি প্রতি ঝুঁকছে গাড়িপ্রেমীরা। সুতরাং বাজারে চাহিদাও বেড়েছে একের পর এক কোম্পানির তৈরি বৈদ্যুতিক গাড়ির উপর। এবার তাঁদের কথা মাথায় রেখেই আই পিও-র মূল্যায়ন এবং তৈরীর কাজও শুরু করেছেন টাটা অটোমোবাইল কোম্পানি। আসলে, টাটা গ্লোবাল ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানিও ডিজিটাল পরিষেবা সরবরাহকারী টাটা টেকনোলজির ভ্যালুস আনলক করার পরিকল্পনা করছে। সেই কারণেই নিজেদের আইপিও তৈরির পরিকল্পনা করছেন তাঁরা।

ইতিমধ্যেই তাঁরা টাটা টেকনোলজিস্টের পক্ষ থেকে একটি ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকও তৈরি করেছে। এর মাধ্যমে তাঁরা দেশি-বিদেশি নানা আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে যুক্ত করতে চাইছে। তবে অনেকেই হয়তো জানেন না যে, টাটা টেকনোলজিস্টের ৭৪ শতাংশ অংশীদারিত্ব রয়েছে টাটা মোটরসে। আর মহারাষ্ট্রের পুনেতে রয়েছে এই কোম্পানির সদর দপ্তর। যদিও টাটা টেকনোলজি গোটা বিশ্বে প্রায় ১৮ টি দেশে নিজেদের ব্যবসা ছড়িয়ে রেখেছে।

এছাড়াও তাঁদের পৃথিবী জুড়ে রয়েছে ১৮টি বিতরণ কেন্দ্র। যার মধ্যে রয়েছে, ব্যাঙ্কক, হ্যাভওয়ে, টোকিও, সিঙ্গাপুর, উত্তর আমেরিকার ডেট্রয়েডে এবং ইউরোপের একাধিক দেশ। এই কোম্পানির বর্তমান কর্মচারীর সংখ্যা প্রায় কয়েক লাখ। সুতরাং বুঝতেই পারছেন যে, খুব শীঘ্রই অত্যন্ত সুবর্ণ সুযোগ আসতে চলেছে টাটা গোষ্ঠীর তরফ থেকে। আর সেই ফায়দা তুলতে নিজেকেই সর্বদা প্রস্তুত রাখুন।

Related Articles