×
নিউজ

মৎস্যজীবীদের জালে উঠল বিরল প্রজাতির নীল লবস্টার, দেখে অবাক নেটবাসী, রইল ছবি

বিজ্ঞাপন

বাড়িতে বড়ো অনুষ্ঠান হলে বা বছরে দু একবার গলদা চিংড়ি বা লবস্টার খেয়ে থাকি। তবে অতিরিক্ত সাধারণ দাম এবং সহজলভ্য নয় বলে বাড়িতে দেখতে পাওয়া যায় না বিশেষ। তবে বড়ো বড়ো ফাইভ স্টার হোটেলের মেনুতে দেখতে পাওয়া যায়। আবার বাঙালি বিয়ে বাড়ির মেনুতে লবস্টার দেখতে পাওয়া যায়। বিশ্বে বেশি জনপ্রিয় লবস্টার হলো আটলান্টিক সমুদ্রে লবস্টার। তবে কী জানেন সমুদ্রে এমন এক প্রজাতির লবস্টার আছে যা বিরল। আমরা আজকে সেই বিরল প্রজাতির লবস্টারের ব্যাপারে জানবো।

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় বিশেষ করে ইউটিউবে ASMR ভিডিও সব চেয়ে বেশি দেখতে পাওয়া যায়। আমরা নানান ইউজারদের ফাস্ট ফুড, মাছ, ফল, চকলেট, কেক খাওয়ার ভিডিও দেখি। তারমধ্যে বেশ কিছু বিদেশী ইউজারের ভিডিওতে তাদের গোটা গোটা লবস্টার খেতে দেখতে পাওয়া যায়। তারা বিভিন্ন সস বা মেওনিজের ডুবিয়ে লবস্টারের স্বাদ নেন। তাদের এই ভাবে আসতো লবস্টার খেতে দেখে আমাদেরও লোভ হয়।

এক মৎস্যজীবী আমেরিকার পোর্টল্যান্ডের সমুদ্রে মাছ ধরার সময় এক ধরনের বিশেষ ধরনের লবস্টারের দেখা পান। অন্যান্য লবস্টারের মতো কালচে বা কমলা রঙের নয় এই লবস্টার গাঢ় নীল রঙের হয়। গবেষণা থেকে জানা গিয়েছে, প্রায় তিন কোটির মধ্যে একটা হয় এই নীল লবস্টার এবং এই লবস্টারকে ‘বানানা’ নামে ডাকা হয়। লার্সইয়োহান লারসন নামে ওই মৎস্যজীবী পোর্টল্যান্ডে সমুদ্রে মাছ ধরার সময় জালে উঠে আসে এই বিরলতম লবস্টার।

সেই মৎস্যজীবীর কাজ হলো নতুন মাছের খোঁজ করা। সেই জন্যে নীল লবস্টারের ছবি নেন, তাকে নিয়ে ভিডিও করেন এবং সেই লবস্টারকে সমুদ্রের জলে ফের ছেড়ে দেন। এই লবস্টার সমুদ্রের নোনা জল ছাড়া বাঁচে না। এটি দেখতে গলদা, বাগদার মতন হলেও এটি একটি বড় সাইজের সন্ধিপদী প্রাণী।

Related Articles