×
দেশনিউজ

শোকের ছায়া শিল্প জগতে! প্রয়াত হলেন ‘নন্টে ফন্টে’-এর স্রষ্টা নারায়ণ দেবনাথ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রয়াত হলেন বিখ্যাত কার্টুনিস্ট নারায়ণ দেবনাথ (Narayan Debnath)। কিছুদিন আগেই হাসপাতালে গিয়ে রাজ্যের সমবায় মন্ত্রী অরূপ রায় এবং স্বরাষ্ট্রসচিব বিপি গোপালিকা বিখ্যাত কার্টুনিস্ট নারায়ণ দেবনাথের হাতে পদ্মশ্রী স্মারক এবং মানপত্র তুলে দিয়ে আসেন, নারায়ণবাবুর পরিবারের একটাই আর্জি ছিল, যাতে মৃত্যুর আগেই নারায়ণবাবু তাঁর পদ্মশ্রী খেতাব দেখে যেতে পারেন। কারণ নারায়ণবাবু পদ্মশ্রীতে ভূষিত হয়েছিলেন গত বছর, কিন্তু বার্ধক্যজনিত কারণে দিল্লী পর্যন্ত যেতে পারেননি তিনি।

বিজ্ঞাপন

তাই তাঁকে কথা দেওয়া হয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকেই তাঁর হাতে এই খেতাব পৌঁছে দেওয়া হবে। যেমন কথা, তেমন কাজ! সেইমতই কয়েকদিন আগে নারায়ণ দেবনাথের হাতে হাসপাতালে গিয়ে পদ্মশ্রী সম্মান তুলে দেওয়া হয়। কিন্তু সেই সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই চির নিদ্রায চলে গেলেন তিনি, না ফেরার দেশ থেকে আর ফিরবেন না দেশের এই অমূল্য রত্ন। ‘বাঁটুল দি গ্রেট’, ‘নন্টে-ফন্টে’র স্রষ্টা ছিলেন নারায়ণ দেবনাথ।

তাঁর পরিচয় বিখ্যাত কার্টুনিস্ট হিসেবেই। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৭ বছর। প্রচণ্ড শারীরিক জটিলতায় ভুগছিলেন তিনি কয়েক মাস ধরেই। সেই কারণে গত ২৪ ডিসেম্বর হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। হাসপাতাল থেকে আর বাড়ি ফেরা হলনা তাঁর, সেখানেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন তিনি। সঙ্গে রেখে গেলেন তাঁর কাল্পনিক সৃষ্টি, হাঁদা-ভোঁদা, বাঁটুল দি গ্রেট-দের মতন সৃষ্টিকে।

শনিবার রাত থেকেই ভেন্টিলেশনে রাখতে হয়েছিল তাঁকে, এমনকি তাঁর চিকিৎসার জন্য মাল্টিডিসিপ্লিনারি মেডিক্যাল বোর্ডও গঠন করা হয়েছিল। কিন্তু কোনো কিছুতেই কোনো লাভ হলনা, কারণ গতকাল থেকেই প্রবীণ চিত্রশিল্পী চিকিৎসায় কোনও সাড়া দিচ্ছিলেন না, তাই চিকিৎসকরা প্রায় আশা ছেড়ে দেন এমনকি মৃত্যুর আগে তাঁর শরীরের অক্সিজেনের মাত্রাও দ্রুত কমছিল।

টানা ২৫ দিন ধরে হাসপাতালের বেডে শুয়ে লড়াইয়ের পর অবশেষে থামল সেই লড়াই। আজ সকাল ১০.১৫ মিনিটে পরপারে যাত্রা করলেন তিনি। তবে, এই চিত্রশিল্পী কমিকস শিল্পী হওয়ার আগে থেকেই একজন নিখুঁত অলঙ্করণ শিল্পী ছিলেন, অনেকেই বোধহয় তা জানেননা। স্বপনকুমার থেকে ঠাকুমার ঝুলি, বিভিন্ন ধরনের বইতে তাঁর আঁকা প্রচ্ছদ এখন একটি দুর্লভ সম্পদ। এমনকি নব্বই পেরিয়েও একাধিক অসুস্থতার কারণেও, তিনি ছবি আঁকা থামাননি, হাসপাতালে শুয়েও খাতায় আঁকিবুকি কেটেছেন তিনি। সেটিও এখন সোশ্যাল মিডিয়ার দরবারে দাপটের সঙ্গে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এছাড়া নারায়ণ দেবনাথের তুলিতে বারবার আটকা পড়েছিল গ্রামবাংলা, নদীনালা, গাছপালার দৃশ্যও।

Related Articles