×
নিউজ

দেশের জমিতে বিদেশি ফসল ফলিয়ে এই ব্যক্তির আয় লক্ষ লক্ষ টাকা, রইল বিস্তারিত

বিজ্ঞাপন

দেশে বসে বিদেশি নিয়মানুসারে চাষাবাদ করে লক্ষ্য লক্ষ্য টাকা উপার্জন কী সত্যি সম্ভব? হ্যাঁ সম্ভব তাও সিনেমার গল্পে নয় বাস্তব জীবনে। দেশের মাটিতে বসে একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার করছেন চাষ। যখন চাষীদের অবস্থা শোচনীয় সেই সময় এক ইঞ্জিনিয়ার চাষের কাজে নিজেকে নিয়োগ করা চারটি কথা নয়।

বিজ্ঞাপন

ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করার পর কর্ণাটক বাসিন্দা অজয় নায়ক গোয়ার একটি বেসরকারি কোম্পানিতে কর্মে রতি হলেও ইচ্ছে ছিলো নিজের কাজ শুরু করার। এই জন্যে তিনি চাকরি ছেড়ে নিজের ‘ মোবাইল সফটওয়্যার ‘ কোম্পানি শুরু হয়। আসতে আসতে রোজকার বাড়তে থাকে। এমন সময় জানতে পারেন মাটিহীন ভাবে চাষের ব্যাপারে। বৈজ্ঞানিক মতে একে ” হাইড্রপনিক্স ” এবং চলতি ভাষায় এই পদ্ধতিকে বলে ” অ্যাকুয়াকালচার “।

এই পদ্ধতিতে মাটির বদলে ব্যবহৃত হয় নুড়ি, বালি এবং জল দিয়ে। আর ফসলের পুষ্টির জন্যে জিঙ্ক, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম, নাইট্রোজেন, পটাশ, সালফার এবং আয়রন মিশ্রিত দ্রবণ। হাইড্রপনিক্স পদ্ধতিতে তৈরি গাছে এই দ্রবণের কয়েক ফোটা মাসে দু বার ব্যবহার করা হয়। পদ্ধতি শুনে অজয় খুব উৎসাহী হন এবং সিদ্ধান্ত নেন তিনি চাষ করবেন। তাই নিজের কোম্পানি জার্মানের ফার্মের কাছে বিক্রি করে, সম্পূর্ন রূপে নিজেকে কৃষি কাজে নিযুক্ত করেন।

যেখানে সাধারণ চাষের লোকশানের পরিমাণ বেশি সেখানে এই পদ্ধতিতে চাষের লোকশানের পরিমাণ একদম নেই বললেই চলে। বহু ফসলের চাষ হলেও তার ব্যয় এত অধিক থাকে যে লাভের মুখ দেখাই যায় না। সেই স্থানে দাড়িয়ে হাইড্রপনিক্স পদ্ধতিতে লাভ অত্যধিক। এমন কৃষিকে আপন করে তাকে এক ধাপ উচুঁতে নিয়ে যাওয়ার জন্যে অজয় নায়ক কে কুর্নিশ জানানো দরকার। যিনি কৃষি কাজ করে কেবল নিজের আর্থিক পথ খোলেননি, দেশেকে স্বনির্ভর ও করেছেন।

Related Articles