×
নিউজ

মাত্র ১৮ হাজার টাকা দিয়ে আজই বাড়িতে আনুন Hero HF Deluxe! রইল বিস্তারিত

বিজ্ঞাপন

Hero HF Deluxe: ভারতের বাজারে বিক্রিত সবচাইতে জনপ্রিয় মডেল হল Hero HF Deluxe। এই গাড়ির যেমন কম দাম, তেমনি দুর্দান্ত মাইলেজ। কথায় আছে না, দামে কম স্বাদে চটকদার। এই কারণেই এই বাইক দেশের সব বাইকপ্রেমিদের মন জয় করে নিয়েছে। আর এই গাড়ির দাম, আপনার সাধ্যের মধ্যেই। নতুন Hero HF Deluxe কিনতে খরচ পড়বে মাত্র ৫৯,৮৯০ টাকা থেকে ৬৫,৫২০ টাকা। তবে এই দামের থেকেও অর্ধেকে দামে এই বাইক কিনতে পারেন। জেনে নিন কী ভাবে?

বিজ্ঞাপন

ভাবছেন এই দামও আপনার খরচ সাপেক্ষ নয় তাইতো! তবে তাঁদের জন্যে রয়েছে সুখবর। এই গাড়ির নতুন মডেল কিনতে অনেকটা বেশি খরচ হলেও সেই জায়গায় সেকেন্ড হ্যান্ড মডেল বেছে নিতেই পারেন। আর এতে মিলবে বিপুল সঞ্চয় করারও সুযোগ। তাই সত্ত্বর একাধিক অনলাইন প্লাটফর্মে যোগাযোগ করুন, যেখানে এই মোটরসাইকেলের সেকেন্ড হ্যান্ড মডেল কেনার সুযোগ মিলছে। কোথায় পাবেন এই গাড়ি?

১. QUIKR: এই ওয়েবসাইটে মাত্র ২৫০০০ টাকা খরচ করেই ২০১৮ সালে লঞ্চ হওয়া Hero HF Deluxe সেকেন্ড হ্যান্ড মডেল কিনতে পারেন। তার জন্যে লাগবেনা কোন ফাইনান্স প্ল্যান।

২. OLX: এছাড়াও এই ওয়েবসাইটে থেকেও ২০১২ সালের সেকেন্ড হ্যান্ড Hero HF Deluxe গাড়িটি কিনতে পারেন। সেখানে এই বাইকটি কিনতে খরচ পড়বে মাত্র ২২০০০ টাকা।

৩. DROOM: এছাড়াও DROOM ওয়েবসাইটেও ২০১১ সালের এই মডেল বিক্রি হচ্ছে। আসলে এই মডেল একেকটা নতুন নতুন ফিচারের সঙ্গে প্রতিবছর লঞ্চ হয়েছে বাজারে। ২০১১ সালের এই সেকেন্ড হ্যান্ড Hero HF Deluxe কিনতে পারেন মাত্র ১৮,০০০ টাকা দিয়ে। একই সঙ্গে এই মডেল কিনলে ফাইনান্সের সুযোগ পাবেন।

আরও অন্যান্য ফিচার্স:
তবে অবশ্যই এই সেকেন্ডহ্যান্ড Hero HF Deluxe কেনার আগে এই মডেলের ফিচার্স ও স্পেসিফিকেশন সম্পর্কে ভালো করে জেনে নেবেন। Hero-র এই মডেলে রয়েছে একটি 97.2 cc সিঙ্গেল সিলিন্ডার BS6 ইঞ্জিন। এই ইঞ্জিনে সর্বোচ্চ 8.02 PS শক্তি ও 8.05 Nm টর্ক পাওয়া যায়। এছাড়াও এই গাড়ির ফিচারের তালিকায় রয়েছে, 4 স্পিড ম্যানুয়াল ট্রান্সমিশন। সুতরাং বুঝতেই পারছেন, মানুষ শুধু শুধু এই গাড়ির প্রেমে পড়েননি। দুর্দান্ত মাইলেজের জন্য জনপ্রিয় এই বাইক। ARAI সার্টিফিকেশন অনুযায়ী এক লিটার পেট্রলে 83 km চলবে এই গাড়ি। তবে একটাই সমস্যা হল, এই মডেলের সেকেন্ড হ্যান্ড মডেলগুলিতে BS6 ইঞ্জিন মিলবে না।

এই বাইকের সামনে টেলিস্কোপিক হাইড্রোলিক শক অ্যাবজর্বার ও পিছনে 2 স্টেপ অ্যাডজাস্টেবল হাইড্রোলিক শক অ্যাবজর্বার রয়েছে। দুই চাকাতেই থাকছে 130 mm ড্রাম ব্রেক। সামনের চাকায় 2.75 x 18 – 4PR/42P ও পিছনের চাকায় 2.75 x 18 – 6PR/48P টায়ার ব্যবহার করা হয়েছে। এই বাইকের দৈর্ঘ্য 1965 mm। হুইলবেসের দৈর্ঘ্য 1235 mm। এতে রয়েছে কিক স্টার্ট ও সেলফ স্টার্ট। রয়েছে অ্যাডভান্সড প্রোগ্রামড ফুয়েল যুক্ত ইনজেকশন সিস্টেম।

Related Articles