×
নিউজ

দীঘার সমুদ্রে পাওয়া গেল বিশালাকার ৫৫ কেজির মাছ, বিক্রি করে লক্ষাধিক টাকা পেলেন ব্যবসায়ী

বিজ্ঞাপন

কথায় আছে, ভাগ্য অনুকূল হলে মাটি ধরলেও সোনা হয়। আর এই প্রবাদ যেন একেবারেই সত্য হয়ে উঠলো এক মৎস্যজীবীর ক্ষেত্রে। সম্প্রতি, কিছুদিন আগেই দীঘা মোহনায় একটি ট্রলারে উঠে আসে ১২১ পিস তেলিয়া ভোলা মাছ, সেই মাছ বিক্রি করে রাতারাতি কোটিপতি হয়ে উঠেছিলেন কয়েকজন জেলে ব্যবসায়ী। এবারে সেই দিঘার জলেই এক মৎসজীবীর জালে ফের উঠে এসেছে বিশালাকৃতির তেলিয়া ভোলা। যা বিক্রি করতেই ১৩ লাখ টাকার মালিক হয়ে উঠলেন সেই মাছ ব্যবসায়ী।

বিজ্ঞাপন

দীঘা ফিশারম্যান অ্যান্ড ফিস ট্রেডার্স আসিয়ানের অন্যতম কর্তা নবকুমার পয়ড়্যার বলেছেন-‘ পূর্ব ভারতের সবথেকে বড় নোনা মাছের মৎস্য নিলাম কেন্দ্র দীঘা মোহনায় একটি ৫৫ কেজি ওজনের তেলিয়া ভোলা মাছ নিয়ে ব্যাপক ধর কষাকষি চলছিল।’ এমনকি গত রবিবার দিন মোহনা মৎস্য নিলাম কেন্দ্রে সেই মাছ কিনতে হুড়োহুড়ি পড়ে গিয়েছিল। আর কয়েক ঘন্টা নিলামের পর শেষ পর্যন্ত এই মাছটি বিপুল টাকায় কিনে নেয় এসএসটি নামক একটি সংস্থা।

সেখানকার এক আড়ৎদার আত্মিক বেরা জানিয়েছেন, ‘৫৫ কেজি স্ত্রী মাছটি বিক্রির সময় ডিমের জন্য ৫ কেজি ওজন বাদ যায়। তারপর মাছটি নিলাম শুরু হলে প্রায় তিন ঘণ্টা ধরে এর দামদর চলে। শেষ পর্যন্ত ২৬ হাজার টাকা কেজি দরে ১৩ লক্ষ টাকায় বিক্রি হয় মাছটি।’ কিন্তু, এই তেলিয়া ভোলা মাছটি যদি পুরুষ হতো তাহলে এর দাম অনেক বেশি হত। এটি জানা গিয়েছে কারন মাত্র ৬ দিন আগেই দীঘা মোহনা বাজারে ৩০ কেজির একটি পুরুষ তেলিয়া ভোলা বিক্রি হয়েছে ৯ লক্ষ টাকায়। আর এই মাছের এত দাম হওয়ার কারণ এই প্রজাতির পেটে থাকা পটকা। যা জীবনদায়ী ঔষধের খোল তৈরি করতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

যদিওবা সেখানে প্রতিটি মাছ বিক্রি হয় ১০-১৫ হাজার টাকায়। তবে স্ত্রী তেলিয়া ভোলা মাছটি যখন এই সংস্থা কিনে নিয়েছিলেন তখন তারা জানিয়েছিলেন, ‘এমন বড় আকারের তেলিয়া ভোলা বছরে দু তিনটে ধরা পড়ে।’ কিন্তু, রবিবার দিন দীঘা মোহনায় বাজারে এই মাছটি বিক্রি করার জন্য এনেছিলেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার নৈনানের শিবাজী কবীর নামক একজন মৎস্যজীবী। এর আগেও বহু মৎসজীবী তেলিয়া ভোলা মাছ বিক্রি করলেও এগুলির ওজন কম ছিল কিন্তু এবারে, এই মৎস্যজীবী নিশ্চই ভাগ্যবান ছিলেন তাইতো তাঁর কপালে এত বড় মাছ জোটে এবং রাতারাতি তিনি হয়ে ওঠেন লক্ষ টাকার মালিক।

Related Articles