×
লাইফস্টাইল

ফ্রিজে রাখা রুটিকে এইভাবে করুন নরম ও তুলতুলে, রইল পদ্ধতি

বিজ্ঞাপন

আমরা অনেকেই প্রতিদিন তিনবেলা করে ভাত খাইনা। তিনবেলার মধ্যে একবেলা রুটি রাখি। আবার কেউ কেউ দুবেলাও রুটি খান। স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন অনেকেই। বিশেষ করে ডায়বেটিক রোগীদের ক্ষেত্রে ভাতের থেকে রুটি বেশি উপকারী। তবে রুটি করতে কম ঝক্কি নয়, যেখানে এক উতলেই ভাত হয়ে যায়। রুটির জন্যে প্রথমে আটা মাখতে হবে, বেলতে হবে, তাও আবার গোল হতে হবে এবং সবার শেষে নরম হতে হবে। মাখা বেলা টা সবাই মোটামুটি পারলেও রুটি নরম করতেও দম লাগে। যার জন্যে কয়েকটি টিপসের প্রয়োজন। এছাড়াও রুটি ভাজার পর নরম হলেও, বাড়তি রুটি থাকলে আমরা ফ্রিজে রেখে দি। তখনই হয়ে যায় রুটি শক্ত। শুধু তাই নয়, রুটি নরম হওয়ার ক্ষেত্রে মাখারও ভালো দক্ষতা জানা দরকার। রুটি নরম করতে কি কি করতে হবে জেনে নিন….

বিজ্ঞাপন

১) রুটি করার সময় যদি আটা ময়দার সঙ্গে সামান্য পরিমাণে সাদা তেল অথবা সরষের তেল দিয়ে ভাল করে মাখা যায়, তাহলে দেখবেন ফ্রিজে রাখলেও রুটি একেবারে নরম থাকছে।

২) আমরা অনেক সময় ময়দা দিয়ে রুটি মেখে থাকি, কিন্তু সেক্ষেত্রে ময়দা মাখার সময় যদি সামান্য টক দই ব্যবহার করতে পারেন দেখবেন রুটি সহজেই নরম তুলতুলে হয়ে গেছে, ফ্রিজে রাখলেও কোন অসুবিধা হয় না।

৩) এছাড়া ফ্রিজে যদি রুটি রাখতেই হয়, তাহলে রুটির মধ্যে সামান্য তেল মাখিয়ে রাখুন, দেখবেন পরে সেটিকে ফ্রিজ থেকে বের করলে, আপনার রুটি, একেবারে নরম তুলতুলে হয়ে গেছে।

৪) মনে রাখবেন, ফ্রিজে সব সময় এয়ারটাইট কন্টেইনারের মধ্যে রুটি রাখুন, দেখবেন তাতেও আপনার রুটি একেবারে নরম থাকছে।

৫) এছাড়াও ফ্রিজ থেকে বের করার পর যদি কয়েক সেকেন্ডের জন্য রুটি মাইক্রোওয়েভে গরম করে নিতে পারেন। তাহলেও কিন্তু রুটি ভীষণ নরম থাকবে। তবে এক্ষেত্রে যাদের মাইক্রোওয়েভ নেই তাঁরা গরম তাওয়ার মধ্যে রুটি নিয়ে সামান্য জল মাখিয়ে একটু গরম করে নিতে পারেন। এতেও রুটি ফ্রিজের রুটি নরম থাকবে।

Related Articles