×
লাইফস্টাইল

৪০ বছর বয়সেও ত্বক থাকবে উজ্জ্বল ও প্রানবন্ত, মেনে চলুন এই ৫টি টিপস

বিজ্ঞাপন

আমাদের শরীর ফিট রাখতে যেমন ডায়েট আর কসরত প্রয়োজন ঠিক তেমনি ত্বকের যত্ন নেওয়াও প্রয়োজন। তবে ত্বকের যত্ন নেওয়া মানেই আমাদের কাছে ঝকমারি। ত্বক সুস্থ্য রাখতে মুখ পরিষ্কার করা, ময়েশ্চারাইজিং করা অভ্যাস করে নিতে হবে। বয়স বাড়ার সাথে সাথে বা ভুল ডায়েট ফলো করলে মুখে বলিরেখা ফুটে ওঠে। ৪০ বছর বয়সের পরে অ্যান্টি-এজিং বিউটি রুটিন অনুসরণ করা এমনটা শুনতে পাওয়া যায়। তবে এর আগে থেকে অ্যান্টি-এজিং বিউটি রুটিন অনুসরন করা উচিৎ। আজ আপনাদের এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে টিপস দেবো, আপনাকে বার্ধক্য থেকে দূরে রাখতে সাহায্য করবে।

বিজ্ঞাপন

১. ত্বকের যত্ন নেওয়ার প্রথম ধাপ ত্বককে সুস্থ্য রাখা। সেই জন্যে খাবারের মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে। আপনার প্রতি দিনের খাদ্যতালিকায় ভিটামিন ও মিনারেল অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। সেই জন্যে অনেক পরিমাণে ফল, শাকসবজি, প্রোটিন এবং স্বাস্থ্যকর চর্বি জাতীয় জিনিস খেতে হবে। এতে ত্বক পুষ্টিপূর্ণ হবে এবং ধীরে ধীরে উজ্জ্বল হতে শুরু করবে।

২. ত্বক বিশেষজ্ঞদের মতানুসারে গরমে বলিরেখা, সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি, অক্সিডেটিভ স্ট্রেস এড়াতে ত্বকে সানস্ক্রিন প্রয়োগ করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিদিনের ত্বকের যত্নের রুটিনে রেটিনল অন্তর্ভুক্ত করুন, বর্তমানে এমন বেস কিছু কসমেটিকস রয়েছে যার মধ্যে রেটিনল অন্তর্ভুক্ত আছে।

৩. ত্বকের যত্নের জন্য এমন কিছু দ্রব্য ব্যবহার করা উচিৎ যায় মধ্যে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট রয়েছে। আজকাল বাজারে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ সিরাম এবং ক্রিম কিনতে পাওয়া যায়। এগুলি ব্যবহারের পর বয়সের আগে ত্বকের বার্ধক্য দেখা দেবে না এবং বলিরেখা দূরে থাকবে।

৪. ত্বকে বার্ধক্যের চিহ্ন দূরে রাখতে এবং মুখের উজ্জ্বলতার বৃদ্ধি বা ধরে রাখতে গেলে স্ট্রেস মুক্ত জীবন যাপন করতে হবে। শুধু তাই নয় স্ট্রেস ত্বকের সাথে সাথে চুলেরও অনেক ক্ষতি করে। সেই জন্যে স্ট্রেস থেকে যতটা দূরে থাকা যায় তত ভালো।

৫. প্রাকৃতিক ব্লিচ দই দিয়ে করা হয় থাকে কারণ দইতে ল্যাকটিক অ্যাসিড থাকে। সেই জন্যে ফর্সা মুখ পেতে দই একটি উপকারী এবং গুরুত্বপূর্ন জিনিস। সেই জন্যে সপ্তাহে ২-৩ দিন হাতে দই নিয়ে মুখে ম্যাসাজ করলে এবং তারপর হালকা গরম জল দিয়ে মুখ ধুয়ে পরিষ্কার করে নিলে তৎক্ষণাৎ ত্বকে রঙের পার্থক্য দেখতে পাবেন।

Related Articles