×
বিনোদন

মহা বিপদে নোলক! সে কি প্রমাণ করতে পারবে তার বিয়ের বয়স হয়েছে?

বিজ্ঞাপন

বিয়ের পিড়িতে পৌঁছেও হলো না বিয়ে। বারবার রোহিণীর জন্যেই এক হতে গিয়েও এক হতে পারে না নোলক – অরিন্দম। কখনো নিজে ভালো সেজে, কখনো আবার অন্যের ইমোশানের সঙ্গে খেলা করে অরিন্দম আর নোলকের মাঝে সব সময় দূরত্ব সৃষ্টি করার চেষ্টা করে রোহিণী। এবারে কী পারবে বিয়ে আটকে দুজনের মধ্যে দূরত্ব আরো বাড়িয়ে দিতে? নাকি নোলক এবার উকিল বাবুর হয়ে লড়াই কবে! জানতে হলে চোখ রাখতে হবে স্টার জলসার পর্দায়।

বিজ্ঞাপন

এর আগেও নোলককে ফাঁসিয়ে জেলে দিয়েছিলো রোহিণী। অবশ্য সাময়িক কিছু সময়ের জন্যেই জেলে কাটাতে হয়েছিলো তাকে। অরিন্দম নিজের স্ত্রীর বেল করিয়ে সবার শেষে রোহিণীর চক্রান্তের পর্দা ফাঁস করেছিলো। তারপরেও থেমে থাকেনি রোহিণী কখনো নোলকের মনে আবার কখনো অরিন্দমের মনে বিয়ে নিয়ে খারাপ ধারণা ঢুকিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলেও শেষমেষ সফল হয়নি।

এমন কী নোলককে অরিন্দমের জীবন থেকে সরাতে হসপিটালে এসে অরিন্দমের ওষুধের জায়গায় অন্য ওষুধ রেখে দিয়েছিলো। কারণ রোহিণী ভেবে ছিলো নোলক ওষুধের নাম পড়তে না পারায় অরিন্দমের ভুল ওষুধ খেলে শরীর খারাপ হবে তখন নোলককে অরিন্দমের জীবন থেকে বের করে দেবে বাড়ির লোক। তবে নোলক ওষুধের নাম পড়তে পারায় রোহিণীর চক্রান্ত অসফল হয়। সেই জন্যেই আবার নতুন চ্ক্রান্ত করে আদিত্যকে বিয়ে করার নামে অরিন্দম আর নোলকের জীবনে আসার জন্যেই সব করছে।

বিয়ের দিন নোলকের ভুয়ো জন্মের কাগজ এনে অরিন্দম আর নোলকের বিয়ে আটকে দেয় রোহিণী। সে জানায় নোলকের বিয়ের বয়স হয়নি। অর্থাৎ অরিন্দম নাবালিকাকে বিয়ে করছে। ভিডিওতে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে নোলক কাগজটা দেখতে চাইলে কাগজটা না দিয়ে রোহিণীর মা জানায় একটা কাগজ ছিঁড়ে ফেললে কিছু হবে অনেক এমন কাগজ পাওয়া যাবে। তখন নোলক যখন বলে যে, এক বছর আগেই বিয়ের বয়স পেরিয়ে গেছে তার। রোহিণী বলে এসব মিথ্যে, তোমার বাবা তোমাকে মিথ্যে কথা বলেছে।

Related Articles