×
বিনোদন

সাতপাকে বাঁধা পড়তে চলেছে সাহেব ও চিঠি! কেমন হবে তাদের সংসার? রইল প্রোমো

বিজ্ঞাপন

সাহেব অ্যাকসিডেন্টে নিজের পা হারিয়ে ফেলার পরে তার প্রিয় বান্ধবী রাইমা তাকে ছেড়ে চলে যায়। সাথে নানান কথা বলে অপমান করতে থাকে। এই সব শুনে সাহেবের মায়ের বেশ কষ্ট হওয়ায় নিজের ছেলের জন্যে যোগ্য পাত্রী খুঁজতে চিঠির বাড়িতে পৌঁছে যায়। তারপরে সাহেবের সাথে চিঠির বিয়ের প্রস্তাব দেয় সাহেবের মা। এই প্রস্তাব মেনে বিয়ের সব ঠিক হয়ে গেলেও পাত্রীর নাম জানতে চায় না সাহেব। বিয়ের দিন চিঠিকে দেখে বিয়েতে সম্মতি দেবে তো সাহেব? নাকি রাইমার কথায় বিয়ের মণ্ডপ ছেড়ে পালাবে সাহেব? জানতে হলে দেখতে থাকুন ‘সাহেবের চিঠি’।

বিজ্ঞাপন

ধারাবাহিকের গল্পঃ শুরু হয় বাংলার আইকন সাহেব মুখার্জী এবং পোস্ট ওম্যান চিঠিকে নিয়ে। তারা দুজনেই নিজের নিজের জীবনে ব্যস্ত থাকার পরেও একটা দুর্ঘটনা সবটা বদলে দেয়। যে সাহেব মুখার্জী সকলের মনে রাজত্ব করে এসেছে সেই সাহেব মুখার্জীর জন্যে সকলের মনে দয়া জন্মায়। এই সব দেখে সাহেবের পাশ থেকে সরে যায় রাইমা। তবে আগে যে চিঠি সাহেবকে অহংকারী মনে করত সে সবটা জানার পরে সাহেবের প্রতি নিজের ধারণা পাল্টে নেয়।

আমরা দেখেছি সাহেবের সত্যিটা জেনে ফেলার পরে চিঠিকে নিজের বাড়িতে আটকে রাখে সাহেব। সেখান থেকে পালানোর সময় যে যে কথা গুলো চিঠি সাহেবকে বলে, সেই কথা গুলো সাহেবের মা জানতে পেরে চিঠির প্রতি খুশি হোন। তিনি সাহেবকে জানান, তার বাবা রাইমার আসল রূপ না জেনেই সাহেবের জন্যে রেখে গিয়েছিলেন। তবে এবার আর রাইমার জায়গা হবে না সাহেবের জীবনে। তিনি অন্য মেয়ের সাথে সাহেবের বিয়ে ঠিক করেন।

প্রোমোতে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে, বিয়ের মন্ডপে চিঠিকে দেখে অবাক হয়ে যায় সাহেব। এমন সময় রাইমা বলে ওঠে চিঠি একজন ঠক, আর সাহেবকে সে ঠকাবে। সেই জন্যে বিয়ের মালা ছুঁড়ে ফেলে দিতে গেলে রাইমাকে আটকে জানায় সে বিয়েটা করবে নিজের মায়ের জন্যে। এমন সময় হাত পাকে ঘোরার সময় রাইমা বলে সাহেব এক পাক ঘুরতে না ঘুরতেই তার পায়ের কাছে পড়বে। এমন সময় চিঠি সাহেবকে ধরে নিয়ে জানায় একদিন রাইমাকে সাহেবের পায়ের কাছে পড়তে হবে।

Related Articles