×
বিনোদন

খড়ির জন্য মাঝ রাস্তায় দাঁড়িয়ে ফুচকা খাবার প্রতিযোগিতায় নামলো ঋদ্ধি, রইল ভিডিও

বিজ্ঞাপন

খড়িকে জেদ দেখাতে গিয়ে ফুচকা প্রতিযোগিতায় নামলেন ঋদ্ধিমান, তাই খড়ির সঙ্গে নয় অন্য একটি যুবকের সঙ্গে। যেহেতু সে বলেছে তাঁকে হারানো সম্ভব নয়। সেই কারণেই জেদ করে ফুচকা প্রতিযোগিতায় নামলেন ঋদ্ধিমান। যা তিনি কখনই পছন্দ করেন না। জমে গিয়েছে স্টার জলসার টপার ধারাবাহিক ‘গাঁটছড়া’ (Gaantchhora)। যদিও এই সপ্তাহে টিআরপির রেটিং-এ মিঠাই তাকে বোল্ডআউট করে প্রথম স্থান অর্জন করেছে, কিন্তু তাতে কি? এই সপ্তাহে সেরার সেরা হতে পারেনি খড়ি রানী, ঠিক আছে।

বিজ্ঞাপন

আগামী সপ্তাহে তো টিআরপির প্রথম হবেই, গাঁটছড়া। তা নিয়েই আশাবাদী এই ধারাবাহিকের ভক্তরা। কারণ খড়ি-ঋদ্ধির জমাজমাটি রসায়নের জন্যে ‘গাঁটছড়া’ মেগার জনপ্রিয়তা এখন তুঙ্গে। প্রথম প্রথম খড়ি-ঋদ্ধির সম্পর্ক একদমই ভাল না থাকলেও এখন তাঁদের রসায়ন এক্কেবারে সব অতিক্রম করেছে। হয়তো আগামিদিনে তাঁরাই স্টার জলসার সেরা জুটি হিসেবে পরিণত হবে। গয়না চুরি করার মিথ্যে বদনাম মাথায় নিয়ে সিংহ রায় বাড়ির ছেড়েছিলেন খড়ি। সেটাও যে চক্রান্ত সেই প্রমাণও হয়ে গিয়েছে। খড়ি গয়না চুরির অপরাধে গ্রেফতার হওয়ার পরই ঋদ্ধিমান তাঁকে ছাড়িয়ে নিয়ে এসেছেন।

তাঁদের মধ্যে খুনসুঁটি অভিমান সবটাই যেন নজর কেড়ে নিচ্ছে নেটিজেনদের। তাঁদের কেমিস্ট্রিও দুর্দান্ত। কখনও বিছানার কোন পাশ কার হবে সেই নিয়ে চলে ঝামেলা, কখনও ঋদ্ধিমানের উপর রাগ করে থাকলে ঋদ্ধিমান ঋদ্ধিমান খড়ির প্রিয় খাবার আম এনে বউ কে খুশি করেন। এই ভাবেই চলছে তাঁদের খুনসুঁটি ভরা ভালবাসা। তবে এবার প্রতিযোগিতায় নামলেন ঋদ্ধিমান। তাও আবার ফুচকার।যা তিনি একেবারেই পছন্দ করেন না। খড়ি খেলে তাও তিনি বারণ করেন। এদিকে রাস্তায় একটি ফুচকার দোকানে গিয়ে খড়ি ফুচকা খেটে শুরু করেন। আর সেখানেও খড়ি-ঋদ্ধির পরিচিত একজনের সঙ্গে দেখা হয়ে যায়। তিনিও খড়ির ফুচকা খাওয়াকে সমর্থন করে বলেন, ‘খড়ি ম্যাডাম আজকে ফুচকা ট্রীট আমার তরফ থেকে।’ তখন একেবারে তেলে বেগুনে জ্বলে যায় ঋদ্ধিমান। তখন তিনি বলেন আপনি কেন টাকা দেবেন, ‘আমার বউ কে আমি ফুচকা খাওয়াতে এনেছি আমি টাকা দেব। তখন ছেলেটি বলে, আপনি এত রিয়্যাক্ট করছেন কেন?’ শুরু হয় ঝামেলা।

আর এদের ঝামেলা মেটানোর জন্যে খড়ি নিয়ে ফেলে একটু বুদ্ধি। সে বলে আজকে আপনার আর ঋদ্ধিমানের মধ্যে ফুচকা প্রতিযোগিতা হয়ে যাক, দেখে কে জেতে? তখন ওই ছেলেটি বলে আমাকে হারানো অত সহজ নয়। তখন খড়ি বলে ঋদ্ধিমানবাবু তো হেরেই বসে আছে। তখন খড়ির কথায় ঋদ্ধিমান জেদ করে বলেন, দাদা বানান তো দেখি কে হারায় আমাকে? এই বলে টপাটপ করে মুখে পুড়ে দিতে লাগল ঋদ্ধিমান ফুচকা। আর খড়িও মনে মনে আনন্দ পেতে লাগল।

Related Articles