×
বিনোদন

গায়ে হলুদের সাজে ব্যস্ত নোলক, এদিকে স্ত্রীকে খুঁজে না পেয়ে চিন্তিত অরিন্দম! রইল ভিডিও

বিজ্ঞাপন

অবশেষে ঝুট ঝামেলা মিটিয়ে পাত্র – পাত্রী দুজনেই রাজি বিয়ে করতে। সব দ্বিধা দ্বন্দ না মিটলেও অরিন্দম আর নোলক বুঝতে পেরেছে তাদের সম্মতি থাকলেও এই বিয়ে হবে না থাকলেও হবে। সেই জন্যেই রাজি হয়ে যাওয়া। তবে নোলক মনে থেকেই খুব খুশি। বিয়ের সব আচারার অনুষ্ঠান শুরু হয়ে গেছে রায় বাড়িতে। এবার পালা গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানের। আদিত্য আর রোহিণীর গায়ে হলুদ আলাদা জায়গায় হলেও অরিন্দম আর নোলকের গায়ে হলুদ রায় বাড়িতেই হবে।

বিজ্ঞাপন

নোলক অরিন্দমের বিয়ে না করার কথা শুনে বাড়িতে থেকে পালিয়ে গেছিলো সব কিছু অরিন্দমের মায়ের পায়ের কাছে রেখে। তবে পালিয়ে গেলেই যে সম্পর্ক চিড়ে বেরিয়ে যাওয়া যায় না। সেই জন্যেই রাস্তায় খুঁজতে বের হয় অরিন্দম। অবশেষে রোহিণীর মা জানায় কালি মন্দিরের নোলককে দেখতে পেয়েছেন তিনি। সেখান থেকেই উদ্ধার করে নোলককে। নোলক বাড়ি ফিরে এলে সকলে খুশি না হলেও কয়েক জন বেশ খুশি হয়। বিশেষ করে অরিন্দমের মা।

তিনি নিজের ছেলেকে ডেকে জানায় আর কোনো অশান্তি না করে বিয়েতে রাজি হয়ে যেতে। তবে এত কিছুর পরেও অরিন্দম নোলককে বলে তার পছন্দ মতো ছেলের সাথেই অরিন্দম বিয়ে দেবে। সব শুনে নোলক কিছু না বলায় অবশেষে বিয়েতে রাজি হয় অরিন্দম। দেখতে পাওয়া গেছে ছোট মানুষ বলে বিয়ে হল্লা শুনে ঘর থেকে বেরিয়ে আসার জন্যে অনেক কথা শুনতে হয় নোলককে।

প্রোমোতে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে গায়ে হলুদের সময় অরিন্দম নোলকের খোঁজ করলে তার বোন জানায় মিষ্টি নোলককে গায়ে হলুদের জন্য তৈরি করছে। অন্যদিকে আদিত্য গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান শুরু হয়ে যায়। এইসব দেখে অরিন্দম বলে এমন হট্টগোল শুনলে কে বলতো ঘরে থাকতে পারে! বেকার বেকার মেয়েটা বকা খেলো। অন্যদিকে নোলকের মিষ্টি বৌদি তাকে খুব সুন্দর করে সাজিয়ে দিচ্ছে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানের জন্যে।

Related Articles