×
বিনোদন

সকলের সামনে শুভব্রতকে কষিয়ে থাপ্পড় লক্ষ্মী কাকিমার, রইল ভিডিও

বিজ্ঞাপন

সব মিথ্যের জারিজুরি অবশেষে হলো শেষ। নিজের এবং বরের অপমানের জবাবে শুভব্রতকে সপাটে থাপ্পড় মারলো লক্ষ্মী কাকিমা। এর আগেও থাপ্পড় মারতে গিয়েও সম্পর্কে বড়ো হলেও বয়সে ছোট সেই জন্যে মারতে পারেনি। তবে এইবারে নিজের বরের নামে মিথ্যে অপবাদ দেওয়ার জন্যে আর কিছু ভাবতে পারলেন না লক্ষ্মী কাকিমা। এমন কী বাড়ির কেউ কোন আপত্তিও করলেন না। আসুন দেখে দেওয়া যাক সেই দৃশ্য আর এক বার। কী ভাবে লক্ষ্মী কাকিমা সকলের সামনে সপাটে থাপ্পড় মারলেন নিজের মেজো দেওর শুভব্রতকে।

বিজ্ঞাপন

নিজের শ্বশুর বাড়ির ভিটে বাঁচাতে কত কিছুই না করেছে লক্ষ্মী কাকিমা। তবে বাড়ির খুদেরা আর গুটি দুয়েক লোক বাদে কেউই তার ত্যাগ দেখতে পায় না। সংসার সামলে মুদি দোকান চালায়। এছাড়া মেলা হলে দোকানও দেয়। সবই নিজের সংসারের জন্য তবে সে সংসার তাকে আপন ভাবতে পারেনি এত গুলো বছর। তার প্রমাণ বারবার পেলেও শেষ বারে ছোট হতে হয়েছে তার বরকে।

জন্মদিনের দিন হঠাৎ অসুস্থ্য হয়ে পড়ে লক্ষ্মী কাকিমার শাশুড়ি। নিজের মাকে বাঁচাতে কিডনি বিক্রি করতে গিয়েও শেষে হংসিনীর বাবার জন্যে রক্ষা পায় দেবু। তবে বোঝাই যায়নি শুভব্রতের সাথে চক্রান্ত করছে হংসিনীর বাবা। তারপরে নিজেরাই টাকা লুকিয়ে জানায় বাড়ির বড় ছেলে আর বড় বউ মায়ের অপারেশনের টাকায় ফ্ল্যাট কিনেছে। এরপরে যথারীতি অপমানিত হয় দেবু আর লক্ষ্মী নিজের ছোট ছেলে আর বৌমাকে নিয়ে বেরিয়ে যায়।

অন্যদিকে সবটা বুঝতে পেরে হংসিনী নিজের বাবা এবং মেজ কাকাকে ধরবে বলে ফাঁদ পাতে। দেবুদা হংসিনীর বাবার মতো সেজে শুভব্রতের সাথে দেখা করে এবং তাকে দশ হাজার টাকা দেয়। এই টাকা দেওয়া নেওয়ার সময়ে শুভব্রত সব কথা নিজের মুখে স্বীকার করে। সেই ভিডিও লক্ষ্মী কাকিমা, হংসিনী আর দুলাল ঠাকুমাকে দেখানোর পরে ঠাকুমা বলে তিনি শিক্ষা দিতে পারেননি নিজের মেজো ছেলেকে। সেই জন্যে লক্ষ্মীকে শাস্তি দিতে বলে। লক্ষ্মী কাকিমাও সপাটে থাপ্পড় মারে শুভব্রতকে।

Related Articles